অষ্ট্রেলিয়ার গহীন মরুতে ১৮ শতাব্দির বাংলা পুঁথি

অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলের প্রায় পাঁচশ কিলোমিটার গভীর মরুভূমিতে বেশ কয়েক বছর আগে হঠাৎ খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল একটি প্রাচীন গ্রন্থ, যাকে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন মনে করে সংরক্ষণ করা হচ্ছিল। কিন্তু একজন অস্ট্রেলিয়ান-বাংলাদেশি গবেষক সেখানে গিয়ে দেখতে পেলেন এটি আসলে বাংলা ভাষায় লেখা শত বছরেরও আগের একটি পুঁথি।
খবর বিবিসির। গবেষক ড. সামিয়া খাতুন এই গবেষণার সূত্র ধরে বিশ শতকের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ায় তৎকালীন বাংলা এবং ভারতবর্ষ থেকে মানুষের অভিবাসনের চমকপ্রদ এক ইতিহাসের সন্ধান পেয়েছেন, যা নিয়ে তার একটি বই প্রকাশিত হতে যাচ্ছে।

ড. খাতুন বলছেন সেখানে যে মসজিদগুলো ছিল এই লোকেরা সেই মসজিদগুলোতে ঈদের সময় জড়ো হতেন। এভাবেই ব্রোকেনহিলসহ আশপাশের দুর্গম এলাকাগুলোয় তখন বাঙালিদের একটা বসতি গড়ে ওঠে। আঠারো এবং উনিশ শতকে বিশ্বজুড়ে একটা ব্যাপক অভিবাসনের ইতিহাস রয়েছে। পৃথিবীর নানা প্রান্তের লোক সে সময় নানা জায়গায় বসতি গড়ে তুলেছেন। এই বাঙালি অভিবাসীরা তখন অস্ট্রেলিয়ার গহিন এলাকায় পুঁথি পাঠ করতেন। এই বইয়ে যে বাংলা কবিতাগুলো রয়েছে সেগুলো গান করে অন্যদের পড়ে শোনানো হতো— যেমনটা প্রাচীনকালে পুঁথিপাঠের ধারা ছিল। পুঁথিপাঠ শুনতে আসতেন যারা বাঙালি ছিলেন না।
তাদের জন্য অনুবাদ করে এসব কবিতা শোনানো হতো।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রণবের প্রভাব

October 21, 2017

মানুষের তৈরি কোনো কিছুই মানুষের চেয়ে বড় নয়

October 21, 2017

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *