যে কারণে সমালোচিত অক্সফোর্ড ও ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়!

সমলোচনার মুখে পরেছে বিশ্ববিখ্যাত অক্সফোর্ড ও ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় । খোদ যুক্তরাজ্য ও তামাম দুনিয়ার নাম করা প্রতিষ্ঠানগুলো এই সমালোচনা করছেন। বলছেন, বর্ণবৈসম্য সৃষ্টি করা আদৌ ঠিক হয়নি।

এ নামকরা প্রতিষ্ঠান তাদের গায়ে তিলক এটেছেন। বিষয়টি আদৌ ঠিক হয়নি। সম্প্রতি কৃষ্ণাঙ্গ শিক্ষার্থীদের ভর্তির ব্যাপারে এই দুই বিশ্ববিদ্যালয় যে আচরণ করেছে তা কেবল কৃষ্ণাঙ্গ নয় গোটা মানবতার সঙ্গে বিমাতাসূলভ আচরণ করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩২ টি কলেজের মধ্যে ১০টিতে এবং ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬টি কলেজে এ লেভেলের যোগ্যতা সম্পন্ন একজনও ব্রিটিশ কৃষ্ণাঙ্গ শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়নি।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, সাবেক এক বৃটিশ শিক্ষামন্ত্রী এ দুইটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে “সামাজিক বর্ণবিদ্বেষ” ছড়ানোর অভিযোগ এনেছেন। তিনি বলেছেন, নামকরা এই বিশ্ববিদ্যালয় বর্ণবিদ্বেষ ছড়িয়ে কৃষ্ণাঙ্গ-শেতাঙ্গদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির বীজ বপন করতে যাচ্ছে। যা আদৌ সমিচীন নয়।

লেবার পার্টির সংসদ সদস্য ডেভিড ল্যামি অভিযোগ করে বলেন, “সংখ্যালঘু কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদায়ের প্রতিভাবান তরুণদের বিরুদ্ধে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু পক্ষপাতমূলক আচরণ করা হচ্ছে। এসব বন্ধ করতে হবে।

ল্যামি আরো বলেন, “প্রায় ৪০০ কৃষ্ণাঙ্গ শিক্ষার্থী প্রতিবছর এ-লেভেলে তিনটি কোর্সে ‘‘এ’’ পেয়ে থাকে। অথবা এর চেয়েও ভালো ফলাফল করে। ” এ-লেভেল “বিষয় ভিত্তিক যোগ্যতাগুলি ইউ.কে. বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির যোগ্যতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

জানা যায়, ব্রিটেনেরে জনসংখ্যার প্রায় ৩.৫ শতাংশ কৃষ্ণাঙ্গ।

অক্সফোর্ড এবং কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র বলেন, শিক্ষার অসমতা মোকাবেলার জন্য আরও পদক্ষেপ নেয়া উচিত।

স্কুলে যেতে পারে না বিশ্বের ১৩ কোটি মেয়ে শিশু

October 25, 2017

ঈমান সবার আগে

October 25, 2017

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *