কে বড়-কে ছোট দ্বন্ধে স্কুল ছাত্র খুন

রাজধানীর চকবাজার এলাকার চাঁদনী ঘাটে সিনিয়র-জুনিয়র বিতর্ককে কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে হাসান (১৬) নামে এক স্কুলছাত্রে মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল শনিবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া। নিহতের লাশ এখন ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। ছুরিকাঘাতে নিহত হাসান এ বছর জেএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

গত শুক্রবার চাঁদনীঘাট এলাকার শিশু হাসপাতালের গলিতে জ্যেষ্ঠ ও কনিষ্ঠদের তর্কাতর্কিকে কেন্দ্র করে তার ওপর এ হামলা হয়। জানা গেছে, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় চকবাজার থানাধীন চাঁদনীঘাট এলাকায় স্থানীয় জ্যেষ্ঠ ও কনিষ্ঠদের মধ্যে মারামারি হয়। এ সময় কয়েকজন হাসানকে মারধর করে। এর একপর্যায়ে একজন তার পেটে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এতে গুরুতর আহত হয় হাসান। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে দ্রæত ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। হাসানের বাবা মোহাম্মদ আলী জানান, স্ত্রী-সন্তান নিয়ে তিনি লালবাগ এলাকার পোস্তায় থাকেন।

গত শুক্রবার কয়েকজন ছেলে মিলে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাঁর ছেলেকে মারধর করে পেটে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে তিনি শুনেছেন যে, জ্যেষ্ঠ ও কনিষ্ঠদের মধ্যে দ্বন্ধকে কেন্দ্র করে ঘটনার সূত্রপাত। চকবাজার থানার এসআই মো. জামাল জানান, গতকাল শনিবার সকাল ৯টার দিকে হাসানের বাবা থানায় এসে অভিযোগ করেছেন। এরপর থানা থেকে পুলিশের একটি দল ঢামেক হাসপাতালে গেছে। লাশ এখনো ঢামেকেই রাখা আছে।

গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি সন্ধ্যায় উত্তরায় সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্ধের জেরে স্কুলছাত্র আদনান কবিরকে (১৫) ১৩ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর রোডে কয়েকজন যুবক কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। পরে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই দিন রাতেই আদনানের বাবা কবির হোসেন বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় হত্যা মামলা করেন। আদনান হত্যার পর তেজগাঁওয়ে এ ধরনের একটি ঘটনায় এক কিশোর নিহত হয়।

ইনকিলাব

ইয়েমেনে পরিস্থিতি ভয়াবহ

October 29, 2017

ইসলাম ও তুরস্কের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে ইউরোপ

October 29, 2017

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *