আমি যেভাবে পড়তাম

লেখক ড. আয়েয আল-কারনী

সম্পাদক আহমাদ মোস্তোফা কাসেম আত-তাহতাভী

প্রকাশক হুদহুদ প্রকাশন

আইএসবিএন 987984881192

পৃষ্ঠা সংখ্যা ৮০

মুদ্রিত মুল্য ৳ ২৪০.০০

ছাড়ে মুল্য ৳ ১৫৬.০০(-35% Off)

রেটিং

ক্যাটাগরি ইসলামি বই , ইসলামি বিবিধ বই

 

★এক নযরে লেখক পরিচিতি★
বিশেষ অবদানের কারণে যারা খ্যাতি অর্জন করেন, তাদের সুনাম সাধারণত মৃত্যুর পর ছড়িয়ে পড়ে। মানব-ইতিহাসে খুব কম লোকের ব্যতিক্রম রেকর্ড আছে।
যারা জীবদ্দশায় খ্যাতির চূড়ায় আরোহণ করেছেন। এখন যার কথা আলোচনা করছি, তিনি সেই ব্যতিক্রম রেকর্ড সৃষ্টিকারী লোকদের অন্যতম।
তিনি হলেন আরবের প্রখ্যাত আলেম, বিশিষ্ট লেখক গবেষক ও কবি ড. আয়েয আল -কারনী।
জন্ম সৌদিআরবের কারন জেলায় আল-শুরাইহ নামক গ্রামে।
১৩৭৯হিজরী মোতাবেক ১৯৫৯ইং সালে। 
ছোট্ট বেলায়ই তিনি কুরআন হিফজ করেন, প্রাথমিক পড়াশুনা আল সালমান স্কুলে,মাধ্যমিক রিয়াদে, আর উচ্চতর পড়াশুনা করেছেন প্রাদেশিক শহর আবহায়। তাঁর পিএইচডি'র বিষয় 'মুখতাসার সহীহ মুসলিম'।
এই খ্যাতিমান মানুষটি এখনো জীবদ্দশায় আছেন, এবংবিভিন্ন পন্থায় দ্বীনের খেদমত করে যাচ্ছেন।

★ মূল আলোচনা ★

'আমি যেভাবে পড়তাম' বইটিতে 'ড.আয়েয আল করনী' ঠিক কিভাবে পড়তেন, কি বিষয়ে পড়তেন কোন সময়ে পড়তেন সেই সব নিয়ে আলোচনা করেছেন....

তার পড়ার বর্ণনা অনেকটা এমন ছিলো যে, সর্বক্ষণ পড়ার মাঝেই ডুবে থাকতেন।
কিতাবের জন্য তিনি বন্ধুবান্ধবদের ছেড়ে দিলেন।
তিনি নিজেই বর্ণনা করলেন...
আমার এমন এক জমানা অতিবাহিত হয়েছে যে, আমি বাড়ি হতে বের হতাম না। কিছু দিন খাওয়া-দাওয়ার সময় ও পড়তাম। খেতাম, পড়তাম। হাঁটতাম, পড়তাম। বন্ধুরা ঘুরে বেড়াতো, কিন্তু আমি কিতাব নিয়ে ব্যস্ত, পাতা ওল্টানোয় লিপ্ত।
দিনে প্রায় দুইশ পৃষ্ঠা পড়তাম।
একটি প্যারা পড়তে পড়তে মুখস্থ করে ফেলতাম, কখনো পুরো কাসীদা....

কিতাবটিতে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য পড়ার একটি সময়সূচী সহ এতে তালেবে ইলমের কিছু রোগের কথা তিনি বলেছেন..
তথা রিয়া বা লৌকিকতা, হিংসা, অহংকার আরো অনেক বিষয়। 
আবার তা থেকে দূরে থাকায় উপায় ও বাতলে দিয়েছেন।

আরো জানিয়েছেন, মাসআলা যাচাইয়ের উপায়, যে কোন ছুটির যেন অপব্যবহার না হয়, বিক্ষিপ্ত পাঠ থেকে বিরত থাকতে, নিস্ফল বিতর্ক পরিহার করতে, সর্বোত্তম সাথী হিশেবে কিতাব কে গ্রহণ করতে, দলাদলি থেকে পালাতে, নেককারদের জীবন অধ্যয়ন করতে, সীরাতের সুন্দরতম কিতাবগুলোর কথা ও জানানো হয়েছে।
অনেক মূল্যবান কিছু কিতাবের আলোচনা ও করা হয়েছে।

তেমনি ভাবে তিনি নিজের ব্যাপারে কিতাবে আরো লিখেছেন...
কিতাবের পৃষ্ঠা যেন আমার সাথে প্রেমালাপ করে, কথা কয়, গল্প করে, কিতাবাদি নিয়ে ঘুমাই মানে আলেম, বিজ্ঞানী, সাহিত্যিক ও কবিদের সমাবেশে ঘুমাই।
পড়াকে আমি পেয়েছি দুনিয়া ও আখেরাতের সম্মানের দরজা হিশেবে।

★মন্তব্যে আমি বলতে পারি পড়াকে আমি উন্নতি অগ্রগতির সুপ্রশস্ত মহাসড়ক হিশেবে বেছে নিতে পারি।
অধ্যয়নকে বেছে নিতে পারি নিঃসঙ্গতা, অস্থিরতা, ও বিরক্তির মত রোগের কার্যকর ওষুধ হিশেবে।
ইলমের এবং অন্তরের গভীর কল্যাণ আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করে, সবাইকে এই মূল্যবান কিতাবটি পড়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে শেষ করছি।

আপনি লগড ইন নাই, দয়া করে লগ ইন করুন

এই বিষয়ে অন্যান্য বই