মন ও মানসিক স্বাস্থ্য

লেখক জিয়াউল হক

প্রকাশক দি পাথফাইন্ডার পাবলিকেশন্স

আইএসবিএন 9789843454877

পৃষ্ঠা সংখ্যা ২০৮

মুদ্রিত মুল্য ৳ ৩৫০.০০

ছাড়ে মুল্য ৳ ২৯৮.০০(-14% Off)

রেটিং

ক্যাটাগরি অন্ধকার থেকে আলোতে , ইসলাম ও বিজ্ঞান , গণিত, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি , নতুন বই

মানুষ মন ও শরীর এই দুই আলাদা সত্ত্বার সমন্বয়ে গঠিত।
শরীরের যেমন বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ রয়েছে তেমনি মনেরও রয়েছে সুন্দর একটি অঙ্গসংগঠন। আমরা শারীরিক অঙ্গ প্রত্যঙ্গ গুলো দেখতে পাই এগুলোর পরিচর্যা করি। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমারা মনের অঙ্গের পরিচর্যা তো দূরে থাকুক এর ব্যাপারে সচেতনই নই। মানুষের শরীর যেমন হাত পা মুখমণ্ডল ইত্যাদির সমন্বয়ে গঠিত, মনটা তেমন আবেগ, অনুভুতি, রাগ , বিশ্বাস ইত্যাদির সমন্বয়ে গঠিত। শরীরের কোন অঙ্গ অসুস্থ হলে আমরা অস্বস্তি বোধ করি, একইভাবে মনের গাঠনিক উপাদানগুলোর ভারসাম্যহীনতাও আমাদেরকে অস্বস্তিতে ভোগায় এটা কে আমরা পাত্তাই দিতে চাই না। এমনকি আমাদের অনেকের কাছেই আমাদের মনের প্রতিটি উপাদানের আলাদা আলাদা কাজ, এর প্রয়োজনীয়তা এবং তাৎপর্য সম্পর্কে জ্ঞানই নেই। সেই কারণে আমরা অনেক ক্ষেত্রেই নিজেদের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলি। ফলস্রুতিতে ব্যহত হয় আমাদের পারিবারিক ও সামজিক জীবন।।

উদাহরণস্বরুপ বলা যায়, কেউ যদি আমাকে একটা থাপ্পড় মারতে আসে, তাহলে আমি নিশ্চয়ই আমার মুখমণ্ডল এগিয়ে দিব না। বরং আমি সেটাকে আমার হাত দিয়ে প্রোটেস্ট করার চেষ্টা করব। কারন আমি খুব ভাল করেই জানি হাতের কাজ হলো বাধা দেয়া। 
আবার যখন কেউ কাঁদে আমরা তাদের সামনে অট্টহাসিতে ফেটে পড়িনা কারণ আমরা জানি এটা বেমানান। 
কিন্তু মনের অঙ্গসংগঠনে এমন কিছু সুক্ষ ব্যাপার আছে যেগুলোর আলাদা আলাদা সংজ্ঞা আমরা জানিনা। জানিনা আল্লাহ কেন এত সুক্ষ ব্যাপারগুলো সৃষ্টি করলেন? আমরা মনে করি এসব নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। এই নিয়ে একটা প্রবাদও আছে, 
"ইল্লত যায়না মলে
স্বভাব যায়না ধুলে" 
আমি মোটেও এটার সাথে একমত হতে পারিনা। 
কারণ, মানুষের বিবেক নামক বস্তুর সহায়তায় নিজের স্বভাব সংশোধন করতে পারে। মানুষের বাহ্যিক অঙ্গসংগঠন জন্মগত হলেও, মনের বিকাশ নির্ভর করে পারিবারিক, সামাজিক, পারিপার্শ্বিক অবস্থা এবং শিক্ষাদিক্ষার প্রভাবের উপর। যদি তার স্বভাবে ত্রুটি থাকে তাহলে এই প্রভাবক গুলোর যথাযথ প্রয়োগে মানুষ নিজেকে সংশোধন করতে পারে। 
আর এসব কিছুই জানতে হলে প্রথমেই আমাদের জানতে হবে মনের অঙ্গসংস্থান, এগুলোর প্রয়োজনীয়তা, গুরুত্ব ও তাৎপর্য। 
কিন্তু কেন আমরা এইসব ব্যাপারে সচেতন হবো? আপনারা চারপাশে তাকালেই দেখবেন, আত্মহত্যার ভয়াবহ প্রবণতা, সামাজিক অস্থিরতার বিভৎসতা। সারাদিন আড্ডা দেয়া বন্ধুটা যে ঘুমানোর আগে ফ্যানের দিকে তাকিয়ে ভাবে আমার বাঁচার কোন অধিকার নেই, বাবা বাবা বলে স্নেহ করা আংকেলটা যখন বাসায় ঢুকে, ভয়ে তার ছেলেমেয়েরা লুকিয়ে থাকে এটা আমরা জানিনা। জানলেও এর কোন প্রতিকার পাইনা। 
কাল যে এই একাকীত্ব আর হাতাশা আমাকে জেঁকে ধরবেনা, আমার বাবা যে এমন করবেনা তার কি গ্যারান্টি?

এর একটাই প্রতিকার মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের পরিচর্যা করা।

আর মন মানসিক স্বাস্থ্যের অঙ্গসজ্জা সেই সাথে বর্তমান সামাজিক প্রেক্ষাপটে সেগুলোর আলোচনা ও সমাধান পেয়ে যাবেন বইটিতে। 
কিভাবে আমরা মানসিক স্বাস্থ্যের পরিচর্যা করব?
কিভাবে কুঅভ্যেসগুলো ত্যাগ করব?
আত্মার প্রশান্তি আসবে কিভাবে?
প্রসঙ্গত এই একই ধরণের আরো একটা বই আমার পড়া হয়েছে, সেটাও অনেক ভাল লেগেছে। এস. এম. জাকির হুসাইনের "অন্তরের অসুখ ও আধ্যাত্মিক দাওয়াই"।

আপনি লগড ইন নাই, দয়া করে লগ ইন করুন