যেমন ছিলেন তাঁরা...

লেখক শাইখ খালিদ আল হুসাইনান

প্রকাশক রুহামা পাবলিকেশন্স

পৃষ্ঠা সংখ্যা ২০৮

মুদ্রিত মুল্য ৳ ২৭৭.০০

ছাড়ে মুল্য ৳ ২০৫.০০(-25% Off)

রেটিং

ক্যাটাগরি ইসলামি বই , নবি-রাসুল, সাহাবা ও অলি-আওলিয়া

সফলতার শীতল ছোয়া পেতে হলে সালাফদের চিনতে হবে। জানতে হবে কারা আমাদের পূর্বসূরী, আমাদের আদর্শ। কী ছিল তাঁদের পথ ও পন্থা। কেমন ছিল তাদের ইবাদত বন্দেগী। আমরা দেখি, অনেক মুসলমান মেসি নেইমারের স্টাইলকে ভালোভাসে। আবার অনেকে হলিউড বলিউডের আদর্শ গ্রহণ করে। অনেকে তো হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি ও পশ্চিমা সভ্যতা গ্রহণ করতেও কুণ্ঠাবোধ করে না। তার অন্যতম কারণ সালাফদেরকে না জানা। আর আমরা যারা নিজেদেরকে ইবাদত গুজার মনে করি, আমরাই বা কতটুকু সালাফদের অনুসরণ করি, তাও খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। ইমাম মালেক রা. বাক্যটি স্বর্ণাক্ষরে লিখে রাখার মতো। 'যে পথ পূর্বসূরীদের, সে পথেই কেবল উত্তরসূরীদের সংশোধন নিহিত'। সালাফে সালিহীনদের গুণাবলি, বাস্তবিক জীবনের কিছু জীবন্ত আমল ও মণিমুক্তা সদৃশ বাণী নিয়ে লিখিত বই 'যেমন ছিলেন তারা... '

লেখক তাঁর এই মূল্যবান বইয়ে ত্রিশটি বিষয়ে আলোচনা করেছেন। প্রত্যকটি বিষয়ই অতীব জরুরী। প্রথমে আমি সাবলিল ভাষায় বিষয়গুলোর সংক্ষেপণ তুলে ধরছি: ইবাদত করুন এবং অটল থাকুন। তাকওয়া। বিনয়: নামাযে, সবখানে। সত্যিই মুক্তি। আল্লাহর প্রতি সুধারণা। সাহায্য চাও এবং ধৈর্য ধারণ করো। সুন্নাহর উপর আমল। আল্লাহর যিকির। হৃদয়ের স্বচ্ছতা। এসো জিহাদের পথে। নিয়মিত তাওবা। আল্লাহর বন্ধু। পরকালের ভাবনা। আল্লাহর নিকট মুখাপেক্ষিতা। আল্লাহর বড়ত্ব। মানুষের সাথে রয়েছে অতন্দ্র প্রহরী। দুনিয়া বিমুখতা। আল্লাহর সাক্ষাতের প্রস্তুতি। নিফাকের আশঙ্কা। আল্লাহর সাথে সম্পর্ক। সালাফদের উপদেশ। রিয়া ও কৃত্রিমতা। মৃত্যু অবধি অটল থাকা। নেককারদের জীবনের গোপন রহস্যাবলি। সালেহীনের কিছু বৈশিষ্ট। সৎকর্মশীল ও সংশোধনকারী। অন্যকে প্রাধান্য দেওয়া। আল্লাহ তায়ালার প্রশংসা। কীভাবে তুমি দীর্ঘ সিজদা করবে।

দক্ষ লেখক বিষয়গুলোকে অত্যন্ত নিপুণতার সঙ্গে উপস্থাপন করেছেন। যা পড়া মাত্রই পাঠকের নজর কাড়ে। প্রত্যেকটি বিষয়কে সুবিন্যস্তভাবে সাজিয়েছেন। প্রতিটি বিষয় যেন এক একটি পরিচ্ছেদ। পরিচ্ছেদের অধীনে রয়েছে একাধিক শিরোনাম। প্রতিটি কথাই শিরোনামযুক্ত। ফলে পাঠক সহজেই কথাগুলো আয়ত্ত্ব করতে পারে। লেখক বিষয়গুলোর ব্যাখ্যা করতে গিয়ে কুরআনের আয়াত ও হাদীছের সাথে সাথে উল্লেখ করেছেন সালাফদের মহামূল্যবান বাণীসমূহ, যা সত্যিই অন্তরে রেখাপাত করে। কখনো বর্ণনা দিয়েছেন তাঁদের বাস্তবিক জীবনের অদ্ভুত ঘটনাবলি, যা হতে পারে আপনার জীবনের পাথেয়। সত্যি বলতে কী, আমি লোভ সামলাতে পারছি না, তাই কতিপয় বাণী ও কয়েকটি ঘটনা হুবহু উল্লেখ করছি।

_____________________________

ইবাদত বিষয়ক আলোচনা করতে গিয়ে উল্লেখ করেন, 'ইয়াহয়া ইবনে মুয়াজ রহ. বলেন, শরীর রোগাক্রান্ত হয় ব্যথা-বেদনার কারণে। হৃদয় রোগাক্রান্ত হয় গুনাহের কারণে। তাই, অসুস্থ হলে শরীর যেমন খাবারের স্বাদ পায় না। তেমনিভাবে গোনাহ করলেও হৃদয়ে ইবাদতের স্বাদ পায় না।' -২৪ নং পৃষ্ঠা

তাকওয়া বিষয়ক আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, 'আব্দুল্লাহ ইবনে মুবারক রাহ. তাঁর এক সাথী থেকে একটি কলম ধার নিয়েছিলেন। সেটি ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য তিনি 'মার্ভ' হতে সুদূর শামে ফিরে আসেন।' -২৮ নং পৃষ্ঠা

পরকালের ভাবনা বিষয়ক আলোচনা করতে গিয়ে উল্লেখ করেন, ' ইমাম মালেক রাহ. বলেন, তুমি যতটুকু পরিমাণ দুনিয়ার জন্য চিন্তিত হবে, তোমার অন্তর থেকে ততটুকু আখেরাতের চিন্তা বের হয়ে যাবে। আর তুমি যতটুকু পরিমাণ আখিরাতের চিন্তা করবে, তেমার অন্তর থেকে ততটুকু পরিমাণ দুনিয়ার চিন্তা বের হয়ে যাবে।' -৯৬ নং পৃষ্ঠা

দুনিয়া বিমুখতা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে উল্লেখ করেন, 'ইমাম আহমদ রাহ. এর নিকট দুনিয়ার আলেচনা করা হলে তিনি বলেন, দুনিয়ার অল্প-স্বল্লই যথেষ্ট; আর অধিকত্য তৃষ্ণা বাড়ায়।' -১২৪ নং পৃষ্ঠা 
_____________________________

তাছাড়া বইয়ের আরেকটি বিষয় বিষেশভাবে প্রণিধানযোগ্য: 'আমাকে উপদেশ দিন?' এই মহান প্রশ্নের উত্তরে কী বলেছিলেন হযরত লুকমাম আ. ইমাম আহমদ রহ. হাসান বসরী রাহ. তাউস রাহ. উবাই ইবনে কা'ব রা. উমর ইবনে আব্দুল আজিজ রাহ ও ইবনে তাইমিয়া রা. সহ আমাদের সালফে সালিহীনরা। এই উক্তিগুলো 'সালফে সালিহীনের উপদেশ' অধ্যায়ে একত্রিত করেছেন। যা বইয়ের সৌন্দর্যকে দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

লেখক সম্পর্কে কিছু লেখার দুঃসাহস আমি করব না। শুধু একটি কথাই বলি, যে কথা অন্তর থেকে বের হয়, তা অন্তর পর্যন্তই পৌঁছে। কাগুজের কালি ছিল শুধুই মাধ্যম। অন্তর থেকে অন্তরই কথাগুলো গ্রহণ করলো। যেমন প্রদীপ থেকে প্রদীপ আলো গ্রহণ করে। লেখকের সংক্ষিপ্ত জীবনী বইয়ের শুরুতেই দেওয়া আছে। সচেতন পাঠক তা পড়তে ভুলবেন না।

অনুবাদক অত্যন্ত সহজ ও সাবলিলভাবেই অনুবাদ করেছেন। বইটিতে কোন দূর্বোধ্যতা দৃষ্টিগোচর হয়নি। আপনি পড়লে আঁচ করতে পারবেন না যে বইটি অনুবাদকৃত। আর এখানেই একজন অনুবাদক বা সম্পাদকের কৃতিত্ব। এর পেছনে সম্পাদকের খাটুনিও কিন্তু কম হবে না। বইয়ের পেইজ মানানসই। বাল্ডিং মজবুত। দেখলেই পড়তে মন চাই। আল্লাহ তায়ালা লেখক পাঠক, অনুবাদক সম্পাদক, প্রকাশক প্রচারক, সবাইকে জাযায়ে খায়র দান করুক। আমীন।

আপনি লগড ইন নাই, দয়া করে লগ ইন করুন